THE DIARY GAME :( 09/08/2020) আজকের দিনলিপি

in Bangladeshi Steemian2 years ago (edited)

আজ সকালে ঘুম থেকে উঠতে উঠতে একটু দেরিই হলো তো ধড়পড় করে উঠে ওজু করে ফজরের নামাজ পড়ে নিলাম।নামাজ শেষে প্রতিদিনের মতো গরু গোয়ালে গিয়ে গরুগুলোকে খাবার খেতে দেওয়ার আগে গোয়ালটা পরিষ্কার পরিছন্ন করে দিয়ে। গরু গুলো কে খাবার দাবার খড় দিয়ে গোয়াল ঘর থেকে বেরিয়ে পরিষ্কার হয়ে সকালে খালি পেটে পানি পান করে নিলাম। তারপরে সকালে বাড়ির টুকটাক কাজ করে ছেলে কে সময় দিলাম। অসুস্থ বাচ্চা আলা গরু টাকে একটু ঘাস ছিড়ে এনে দিলাম। তারপর আজকে আর নাস্তা না করে সরাসরি ভাত খেয়ে নিলাম। খাওয়া শেষ করে অসুস্থ গরু টাকে একটা বেথার ইনজেকশন দিলাম।ঔই গাভীর বাচ্চা টা কে একটু রুচি বাড়ানোর হোমিও ঔষধ খাইয়ে দিলাম। আরও একটি গরুকে এলার্জির জন্য asta vet নামের একটি ইনজেকশন দিলাম। তার পরে ১১টার দিকে গোসল করে গাও করে শহরে গেলাম১১.৩০ দিকে টার শহরে গেলাম দোকানের ঔষধ আনার জন্য। এবং কয়েকটি লোক এরসাথে দেখা করার জন্যে।প্রথমে এক বড় ভাইয়ের সাথে দেখা করে কথা বলে।ছেলের জন্যে একটু শপিং করে গরুর ঔষধের দোকানে ঔষধ নিলাম। গরুর ঔষধ নিতে নিতে দেখি মাথার উপর দিয়ে একটি হেলিকপ্টার উড়ে গেলো।

FB_IMG_1596968894531.jpg

পরে জানলাম জেলা জজ করোনা আক্রান্ত। উনাকে নিয়ে যাওয়ার জন্যে সেনাবাহিনির একটি হেলিকপ্টার ঢাকা থেকে এসে। জজ সাহেবকে উন্নত চিকিৎসার জন্য আবার ঢাকা নিয়ে গেলেন।তারপর পশুর ঔষধ নিয়ে আরেকটা দোকানে মানুষের ঔষধ নিলাম।ঔষধ নিতে নিতে জোহরের আজান হলো নামাজ আদায় করে নিলাম।নেওয়ার পর ছেলের জন্যে হালকা খাবার নিলাম। এরপর একজন সাংবাদিক এর সাথে দেখা করলাম। ওনার সঙ্গে কথা বলে। এক বড়ো ভাইকে কলেজ দিলাম দেখা করার জন্য। তিনি বললেন আমি শহরের একেবারে উত্তরে আছি আজকে আর দেখা হবে না।

IMG_20200809_134055.jpg

তার পরে আরেক বড় ভাইয়ের সাথে দেখা করার জন্য হাউজিং অফিস গেলাম ওনার দেখা হলো। কথা শেষ করে বাড়ির দিকে রওয়ানা দিলাম। বাড়িতে ঢুকতে না ঢুকতেই ছেলে গুটিগুটি পা করে আমার কাছে দৌড়।ছেলেকে কলে নিয়ে আদর করতে ইচ্ছে করল। কিন্তু বাহির থেকে আসার কারণে আর কোলে নিলাম না ভাইরাসের ভয়ে। তারপরে ফ্রেশহয়ে ওজু সেরে আসরের নামাজ পড়ে নিলাম। নামাজ শেষে গরু গুলোকে বিকেলের খাওয়া দিলাম।দেওয়ার পর ছেলের সাথে একটু খেলা করলাম। তার কিছু পরে মাগরিবের আযান হলো নামাজ আদায় করে হালকা নাস্তা করে একটু পরে রাতের খাবার খেয়ে নিলাম এশার আজানের আগেই দুপুরের খাবার না খাওয়ার জন্য একটু তাড়াতাড়ি খেয়ে নিলাম।

IMG_20200809_134041.jpg

তার পরে বাজারে গিয়ে হালকা খরচ করে আমাদের ঔষধের দোকানে বসলে বাবা নামাজ পড়ে বাড়ি যায়। আর আমিও একটু পরে এশার নামাজ পড়ে আবার দোকানে এলাম তারপর দোকান বন্ধ করে বাড়ি এসে গরু গুলো কে খাবার দাবার খড় দিয়ে গোয়াল ঘর থেকে বেরিয়ে পরিষ্কার পরিছন্ন হয়ে। ঘরে গিয়ে হালকা খবর দেখে ক্লান্তির কারনে তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে গেলাম।

Sort:  

Great post, Keep posting every day.

Thanks for sharing your diary with us,

For more follow @steemitblog for the latest update on Steem Community such as some tips and curation!
One Percent For Everyone

Also join LUCKY 10S

greeting from @tarpan

Coin Marketplace

STEEM 0.27
TRX 0.08
JST 0.042
BTC 29183.19
ETH 1975.38
USDT 1.00
SBD 2.69