There is no end to knowing about death, What is death?

in #writing6 years ago

rashed041.png

Death means the end of life. In the case of biology, the death of the end of life of any organic substance (or organism) that lives in life is called death. In other words, death is such a condition that when all physical activities such as inhalation, food intake, circulation, etc. stop. When a person dies, he is said to be dead.

বাংলা

মৃত্যু (Death) বলতে জীবনের সমাপ্তি বুঝায় । জীববিজ্ঞানের ভাষায় প্রাণ আছে এমন কোন জৈব পদার্থের (বা জীবের) জীবনের সমাপ্তিকে মৃত্যু বলে । অন্য কথায়, মৃত্যু হচ্ছে এমন একটি অবস্থা যখন সকল শারিরীক কর্মকাণ্ড যেমন শ্বসন, খাদ্য গ্রহণ, পরিচলন, ইত্যাদি থেমে যায় । কোন জীবের মৃত্যু হলে তাকে মৃত বলা হয় ।

Death occurs at different levels. Somatic death is the death of a living organism. This happens before the death of certain organs, cells or cells. In this, heartbeat, inhalation, movement, movements, reflexive action, brain work stopped. It is difficult to determine exactly when Somatic death occurs, because the coma, senselessness, and the person in the dark or trans is also showing similar characteristics.

বাংলা

মৃত্যু বিভিন্ন স্তরে ঘটে থাকে । সোমাটিক মৃত্যু হল সামগ্রিকভাবে কোন জীবের মৃত্যু । নির্দিষ্ট অঙ্গ, কোষ বা কোষাংশের মৃত্যুর আগেই এটি ঘটে। এতে হৃৎস্পন্দন, শ্বসন, চলন, নড়াচড়া, প্রতিবর্ত ক্রিয়া ,মস্তিষ্কের কাজকর্ম বন্ধ হয়ে যায় । সোমাটিক মৃত্যু ঠিক কখন ঘটে তা নির্ণয় করা দুরূহ, কেননা কোমা, অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, এবং ঘোর বা ট্রান্সের মধ্যে থাকা ব্যক্তিও একই ধরনের বৈশিষ্ট্য প্রকাশ করে থাকেন।

After the death of Somatic, many changes took place, from which time and causes of death can be determined. Immediately after the death of the surrounding environment, the body becomes cold, which is called Alger mortise. Five to ten hours after the death of the skeletal muscles becomes tough, which is called Rigor mortise, and it ends three-four days later. The red-blue color seen in the lower part of the body is called Liver mortise; This is due to the accumulation of blood. Blood started clotting after a few days of death. And then the enzyme and bacteria that are responsible for the body's rheumatoid arthritis.

বাংলা
সোমাটিক মৃত্যুর পর অনেকগুলি পরিবর্তন ঘটে যা থেকে মৃত্যুর সময় ও কারণ নির্ণয় করা যায়। মারা যাবার পরপরই পার্শ্ববর্তী পরিবেশের প্রভাবে দেহ ঠান্ডা হয়ে যায়, যাকে বলে Alger mortise। মারা যাবার পাঁচ থেকে দশ ঘণ্টা পরে কঙ্কালের পেশীগুলি শক্ত হয়ে যায়, যাকে বলে Rigor mortise, এবং এটি তিন-চার দিন পরে শেষ হয়ে যায়। রেখে দেয়া দেহের নীচের অংশে যে লাল-নীল রঙ দেখা যায়, তাকে বলে Liver mortise; রক্ত জমা হবার কারণে এমন হয়। মৃত্যুর খানিক বাদেই রক্ত জমাট বাঁধতে শুরু করে। আর তারপরে দেহের যে পচন শুরু হয়, তার জন্য দায়ী এনজাইম ও ব্যাক্টেরিয়া।

Different body parts died at different rates. Brain cells die within 5 minutes of somatic death. On the other hand, heart cells can survive for 15 minutes and adrenaline is about 30 minutes. For this reason, it is possible to replace the limbs with the body and replace it with the body of a living person.

দেহের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিভিন্ন হারে মারা যায়। সোমাটিক মৃত্যুর ৫ মিনিটের মধ্যেই মস্তিষ্কের কোষগুলির মৃত্যু ঘটে। অন্যদিকে হৃৎপিণ্ডের কোষগুলি ১৫ মিনিট এবং বৃক্কেরগুলি প্রায় ৩০ মিনিট বেঁচে থাকতে পারে। এই কারণে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সদ্যমৃত দেহ থেকে সরিয়ে নিয়ে জীবিত ব্যক্তির দেহে প্রতিস্থাপন করা সম্ভব।

There is no end to knowing about death

What is death? What is the unimpressive power in it? There is no end to human effort to find answers to this question. The first reaction to a loved one's death is not to believe it. Do not accept it.

It seems that there was a mistake somewhere. The thing that is coming in, it did not really happen. Imagine all.

For example, 13-year-old mother Zaheer mother Lattas Winkfeld did not agree that her daughter might die. Can anyone die of tonsillal surgery? He did not believe his daughter was declared dead by the doctors. Life support not opened. Finally, they won by court.
When the doctors called 'dead announcement' to young Shalom, the same reaction was his father. The court ran to keep the boy in life support. 'Dead Deed' was kept in artificial process for five months until Shalom was kept. She did not get the child back. Maybe one comfort, at least those five months had the chance to see the chest of riches. He said that Shalom looked as if he was asleep. Gorgeous The look was a pink eye.

In the words of doctors, after the death of a brain (brain death) by the effectiveness of the brain, he looks like a living man. I feel like breathing. It is difficult to accept such a situation for a loved one. They do not want to believe, the man is no longer alive.

Zahir and Shalom were forced to bow down to the beliefs of their parents, science and law. But is it possible to stop death? Never Death is bound to occur. Death is unbelievably true. Death is to embrace. The result is death, but death has been defined in many ways around the world. The definition of death has changed over time. Brain death in the Western world means that a man is said to be dead. On the other hand, in developing countries, cardiovascular system (cardio-respiratory) is stopped due to the death of the person. In some countries, two processes are used for the announcement of the dead. But there is also a debate on whether to declare someone dead. The New Jersey State Court of the United States emphasized the issue of creed in the declaration of the death. There is no rule of dead people to declare dead for the death of the brain except religious beliefs.

A man was declared dead after seeing the process of heart-breathing system, not the brain's death in Bangladesh, said Health Department's Assistant Director and Project Manager (Non-Invasive Disease Control). Raihan i Jannat In the first light, he said that a man was killed - that is to be tested for half an hour to be sure. If there is no reflection on eye glow, if heartburn is not found, breathing process stops, the latest ECG test is confirmed and the person is declared dead.

What happened to shalam and pahir?
Shalom Anyhow was declared dead last September. The 25-year-old Canadian suffers from respiratory problems. After being taken to Ontario's Hospital in Canada, he was kept in ventilator for artificial respiration. After several tests, the doctors found that his brain was not working like this. There is no consciousness. The process of breathing is not reflected in the brain. Shalom was declared dead by doctors. Preparations were made to open the equipment from his body.

বাংলা
মৃত্যু নিয়ে জানার শেষ নেই
মৃত্যু আসলে কী? কী এমন অমোঘ শক্তি এর মধ্যে? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে মানুষের চেষ্টার অন্ত নেই। প্রিয়জনের মৃত্যুসংবাদ পাওয়ার পর প্রথম প্রতিক্রিয়াই হচ্ছে তা বিশ্বাস না করা। মেনে না নেওয়া।
মনে হয় কোথাও কোনো ভুল হয়েছে। যে কথা কান দিয়ে ঢুকছে, তা আসলে ঘটেনি। সবই কল্পনা।
যেমন ১৩ বছর বয়সী জাহির মা লাতাশা উইনকফিল্ড মেনে নেননি তাঁর মেয়ে মারা যেতে পারে। টনসিল অস্ত্রোপচারে কি কারও মৃত্যু হতে পারে?—এমনটাই ভাবছিলেন। তাঁর মেয়েকে চিকিৎসকেরা মৃত ঘোষণা করার পর তিনি তা বিশ্বাস করেননি। খুলতে দেননি লাইফ সাপোর্ট। শেষ পর্যন্ত আদালতের দ্বারস্থ হয়ে জয়ী হয়েছিলেন।
তরুণ শালমকে যখন চিকিৎসকেরা ‘মৃত ঘোষণা’ করেন, একই রকম প্রতিক্রিয়া হয় তাঁর বাবার। ছেলেকে লাইফ সাপোর্টে রাখতে ছুটে গিয়েছিলেন আদালতের কাছে। ‘মৃত ঘোষণার’ পাঁচ মাস পর্যন্ত কৃত্রিম প্রক্রিয়ায় টিকিয়ে রাখা হয়েছিল শালমকে। সন্তানকে ফিরে পাননি তিনি। হয়তো একটাই সান্ত্বনা, অন্তত ওই পাঁচ মাস দেখার সুযোগ পেয়েছিলেন বুকের ধনকে। তিনি বলেছিলেন, শালমকে দেখে মনে হচ্ছিল যেন ঘুমিয়ে আছে। গা উষ্ণ। চেহারায় ছিল গোলাপি আভা।
চিকিৎসকদের ভাষায়, মস্তিষ্কের কার্যকারিতা থেমে যাওয়ার (ব্রেন ডেথ) মাধ্যমে একজন মানুষের মৃত্যু হওয়ার পরও তাকে জীবিত মানুষের মতো দেখায়। মনে হয় যেন শ্বাস টানছে। একটি পরিবারের জন্য প্রিয়জনের এমন অবস্থা মেনে নেওয়া কষ্টকর। তারা মানতে চায় না, মানুষটি আর বেঁচে নেই।
জাহি ও শালমের মা-বাবার বিশ্বাসের কাছে মাথা নত করতে বাধ্য হয়েছিল বিজ্ঞান ও আইন। তবে মৃত্যুকে কি থামিয়ে রাখা সম্ভব? কখনোই না। মৃত্যু অবধারিত। মৃত্যু অমোঘ সত্য। মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতেই হয়। পরিণতি এক হলেও বিশ্বজুড়ে মৃত্যুকে নানাভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পাল্টেছে মৃত্যুর সংজ্ঞা। পশ্চিমা বিশ্বে ব্রেন ডেথ হওয়া মানেই একজন মানুষকে মৃত বলা হয়। অন্যদিকে, উন্নয়নশীল দেশগুলোতে হৃৎপিণ্ড-শ্বাসতন্ত্রের (কার্ডিও-রেসপিরেটরি) প্রক্রিয়া থেমে যাওয়াকে বলা হয় মানুষটির মৃত্যু হয়েছে। কোনো কোনো দেশে দুই প্রক্রিয়াই ব্যবহার হয় মৃত ঘোষণার জন্য। তবে কাউকে মৃত ঘোষণা করা নিয়ে বিতর্কও রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সি অঙ্গরাজ্যের আদালত মৃত ঘোষণার ক্ষেত্রে ধর্মবিশ্বাসের বিষয়টিতে জোর দিয়েছেন। ধর্মীয় বিশ্বাসের বাইরে কাউকে মস্তিষ্কের মৃত্যুর জন্য মৃত ঘোষণা করার নিয়ম নেই সেখানে।
বাংলাদেশে মস্তিষ্কের মৃত্যু নয়, হৃৎপিণ্ড-শ্বাসতন্ত্রের প্রক্রিয়া দেখে একজন ব্যক্তিকে মৃত ঘোষণা করা হয় বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ও প্রকল্প ব্যবস্থাপক (অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. রায়হান ই জান্নাত। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, একজন মানুষ মারা গেছে—এটা নিশ্চিত হওয়ার জন্য আধা ঘণ্টা ধরে পরীক্ষা করা হয়। চোখের মণিতে আলো ফেললে যদি রিফ্লেকশন না হয়, হৃৎস্পন্দন না পাওয়া যায়, শ্বাসপ্রশ্বাস-প্রক্রিয়া থেমে থাকে, সর্বশেষ ইসিজি পরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়ে ওই ব্যক্তিকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়।
কী ঘটেছিল শালম ও জাহির?
শালম ওউয়ানোউনোউকে গত সেপ্টেম্বরে মৃত ঘোষণা করা হয়। ২৫ বছর বয়সী এই কানাডীয় তরুণ শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। কানাডার অন্টারিওর হাসপাতালে নেওয়ার পর তাঁকে কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাস দেওয়ার জন্য ভেন্টিলেটরে রাখা হয়। নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর চিকিৎসকেরা দেখতে পান তাঁর মস্তিষ্ক সেভাবে কাজ করছে না। চেতনা নেই। শ্বাস প্রশ্বাস নেওয়ার প্রক্রিয়াও মস্তিষ্কে প্রতিফলিত হচ্ছে না। শালমকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা। তাঁর শরীর থেকে যন্ত্রপাতি খুলে নেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হয়।

rashed042.png
13-year-old Jahi McMath After doctors declared him dead, he won his legal battle and kept his family in his life support.

Shalom's family Orthodox Jews Like many others, his family believes that a man's death is only when his breathing and heart rate stop. They went to court to oppose the withdrawal of prostitution from Shalom's body. The court ordered them. Shalom's body is fitted with artificial respirator. After five months of this, his heart stopped stopping in March. According to his father Max Annoyance, they did not think that Shalom was alive for a few months.

বাংলা

শালমের পরিবার গোঁড়া ইহুদি। আরও অনেকের মতো তাঁর পরিবারেরও বিশ্বাস, একজন মানুষের মৃত্যু তখনই হয়, যখন তাঁর শ্বাস নেওয়া আর হৃৎস্পন্দন থেমে যায়। শালমের শরীর থেকে ভেন্টিলেশন সরিয়ে নেওয়ার বিরোধিতা করে তাঁরা আদালতে যান। আদালত তাঁদের পক্ষে নির্দেশ দেন। শালমের শরীরে আবারও লাগানো হয় কৃত্রিম শ্বাসযন্ত্র। এভাবে পাঁচ মাস থাকার পর গত মার্চে তাঁর হৃৎস্পন্দন থেমে যায়। তাঁর বাবা ম্যাক্স ওউয়ানোউনোউয়ের মতে, ওই কয়েকটা মাস শালম বেঁচে ছিলেন না, এমনটা তাঁরা ভাবেন না।

In the case of Shalom, the way in which a person was declared dead was done in rich countries. Losing brain function is considered to be the basis of death, doctors go to the brain for treatment. In the United States, it is generally assumed that death of the entire brain stopped working. Such as decreasing blood circulation in the brain coronary. However, according to this rule, it was declared dead only, it is not even matter. In Britain, when brain stem death occurs, it is said to be dead. The bottom part of the tube-shaped brain is the brain stem, it travels between the spinal cord and the rest of the brain. Brain Stem controls the vital functions of the body with breathing. Many people believe that brain stem death is another condition of the whole brain's death. But there are many disagreements in this regard.
In general, there is no such thing as the question of death of anyone. With the brain, the function of the heart and lungs is stopped. The pulse pulse, breathing is diagnosed as brain death or brain death, there is no alternative to it.
According to the University of Chicago's Bioethicist (Medicine of the Institute of Modern Biology and Medicine) and physician Lynee Ross, 'Someone will think that someone is dead and the rest will think he is alive, this is not possible.'
In the case of Shalom, he was challenged to declare him dead. The court of the Ontario court did not yet decide whether Shalom was declared the dead for the first time last year when the death certificate of that time will be canceled or whether he will be given a new certificate by mentioning his death this year.

বাংলা

ধনী দেশগুলোতে যেভাবে একজন ব্যক্তিকে মৃত ঘোষণা করা হয়, সেভাবেই করা হয়েছিল শালমের বেলায়। মস্তিষ্কের কার্যকারিতা হারানোকে মৃত্যুর ভিত্তি হিসেবে ধরা হয় বলে চিকিৎসকেরা চিকিৎসার জন্য মস্তিষ্কের দিকেই ঝুঁকে পড়েন। যুক্তরাষ্ট্রে সাধারণত পুরো মস্তিষ্কের কার্যকারিতা থেমে যাওয়াকে মৃত্যু বলে ধরে নেওয়া হয়। যেমন মস্তিষ্ক করোটিতে রক্ত সঞ্চালন কমে যাওয়া। তবে এই নিয়ম মেনেই শুধু সেখানে মৃত ঘোষণা করা হয়, বিষয়টি তা-ও নয়। ব্রিটেনে ব্রেইন স্টেমের মৃত্যু হলেই মৃত বলা হয়। টিউব আকৃতির মস্তিষ্কের নিচের অংশ হলো ব্রেইন স্টেম, এটা মেরুদণ্ড ও মস্তিষ্কের বাকি অংশের মধ্যে চলাচল করে। শ্বাসপ্রশ্বাসসহ শরীরের গুরুত্বপূর্ণ ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণ করে ব্রেইন স্টেম। অনেকে ব্রেইন স্টেম মৃত্যুকে পুরো মস্তিষ্কের মৃত্যুর আরেকটি অবস্থা বলে মনে করেন। তবে এই বিষয়ে দ্বিমতও রয়েছে অনেকের।
সাধারণভাবে কারও মৃত্যু নিয়ে প্রশ্ন ওঠার ঘটনা খুব একটা ঘটে না। মস্তিষ্কের সঙ্গে হৃদ্‌যন্ত্র ও ফুসফুসের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যায়। নাড়ির স্পন্দন, শ্বাসপ্রশ্বাসকে ব্রেইন ডেথ বা মস্তিষ্কের মৃত্যুর নির্ণায়ক হিসেবে ধরা হয়, এর কোনো বিকল্প নেই।
ইউনিভার্সিটি অব শিকাগোর বায়োএথিসিস্ট (আধুনিক জীববিজ্ঞান ও ওষুধবিষয়ক নীতিশাস্ত্র বিশেষজ্ঞ) ও চিকিৎসক লাইনি রসের মতে, ‘একজন ব্যক্তিকে কেউ কেউ মৃত বলে মনে করবেন আর বাকিরা তাকে জীবিত ভাববেন, এটি সম্ভব নয়।’
শালমের ঘটনায় যেমন তাঁকে মৃত ঘোষণা করা নিয়ে চ্যালেঞ্জ করা হয়েছিল। শালমকে গত বছর প্রথমবার যখন মৃত ঘোষণা করা হয়েছিল ওই সময়ের মৃত্যু সনদ বাতিল করা হবে, নাকি এই বছর তাঁর মৃত্যুর কথা উল্লেখ করে নতুন সনদ দেওয়া হবে—সে বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত নেননি ওন্টারিওর আদালত।

rashed043.png

The bottom part of the tube-shaped brain is the brain stem, which controls the vital function of the body, including breathing.
"Definition of death is determined based on the consideration of cultural, philosophical, religious, social and other matters," according to a Japan-based lawyer and biophilist Rehito Kimura. It is now changing.
Although the brain is the main subject of death, followers of different religions question it. Often it is in opposition to religion. Before a Jew died, Rabbi (Jewish religious leader) was undergoing a feather or a mirror in front of the nose of the person, it would be ensured that the test was about death. Although most of the Jews have accepted the death of the brain. Muslims have similar beliefs.
His family did not want to believe after the death of Takshah Mckuki, a Christian god in Canada. His family said, Taksha believed that as long as the heart works, the soul is present there. If there is a heart due to medical equipment, the soul is present.
Hag Skeet was the lawyer of Shalim and Takitha's two families. He presented to the court, according to Canadian law, the definition of death violates the religion of the country. On the contrary, it was argued that only living people have that right. However, there was some support for Hag Scar's argument. In the United States, New Jersey, there is a ban on the declaration of a person dead by a doctor if he is against religious belief. In 2004, despite the criteria for the death of the brain in Israel, the subject matter of the patient's desire-unwillingness was also given importance. There is a chance to choose between either of the brain or death of the heart-respiratory system and the death.
The 13-year-old American teenager Jahy MacMoth was discussed in the United States. The doctor who admitted to hospital for tonsillal surgery was declared dead on December 12, 2013, in California, California state doctors. But the physician challenged this decision to go to the court, the mother of the mother. On behalf of her, the lawyer presented more than one video, showing that the finger was moving. Although doctors at the hospital said such movements could be seen after the brain died. There is even warmth on the body. They refuse to keep 'dead people' in life support. But with the legal battle, his mother forced him to live life support. At the court's direction, his mother went to California for a jockey from California. Because, in New Jersey, there is no rule of dead people for the death of the brain except religious belief. There is still life support in an apartment there, Jahi.
Why is the dead declared?
The change in the pulse of the pulse or the heart and breath-breathing process has changed in the 1950s and 1960s. There is a change in the thinking that is due to modern medical treatment. For the first time, it is possible for a person to keep blood flow in the arteries and veins of a person through the machine. The unstable lungs are kept active. Thus the process of death was prolonged until the effect of each organs ceases.

In 1968 a committee of Harvard Medical School referred to the death of the brain as the exact definition of death, and it sets out some criteria for measuring.
In 1968, the United States attached the recommendations of the Committee to the Deaths Act. In this, brain death is defined as death. Along with this, it is referred to as the definition of death due to heartburn and respiratory failure or permanent damage to the entire brain. Most of the Western countries follow this.

বাংলা

টিউব আকৃতির মস্তিস্কের নিচের অংশ হলো ব্রেইন স্টেম, যা শ্বাস-প্রশ্বাসসহ শরীরের গুরুত্বপূর্ণ ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণ করে।
জাপানের এক আইনজীবী ও বায়োএথিসিস্ট রিহিতো কিমুরার মতে, ‘মৃত্যুর সংজ্ঞা সাংস্কৃতিক, দার্শনিক, ধর্মীয়, সামাজিক ও অন্যান্য বিষয় বিবেচনার ওপর ভিত্তি করে নির্ধারণ করা হয়।’ এটায় এখন পরিবর্তন আসছে।
মস্তিষ্ককে মৃত্যুর মুখ্য বিষয় বলা হলেও বিভিন্ন ধর্মের অনুসারীরা তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। প্রায়ই তা ধর্মবিশ্বাসের বিরোধিতায় পড়ে। আগে একজন ইহুদি মারা গেলে রাব্বি (ইহুদি ধর্মীয় নেতা) ওই ব্যক্তির নাকের সামনে পালক বা আয়না ধরে শ্বাস চলছে কি না, পরীক্ষা করে নিশ্চিত হতেন মৃত্যুর বিষয়ে। যদিও এখন বেশির ভাগ ইহুদি মস্তিষ্কের মৃত্যুকে মেনে নিয়েছেন। মুসলিমদের মধ্যেও একই ধরনের বিশ্বাস রয়েছে।
কানাডায় খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী তাকিশা ম্যাককিটি মারা যাওয়ার পর তাঁর পরিবার মানতে চায়নি। তাঁর পরিবার বলেছিল, তাকিশার বিশ্বাস ছিল, যতক্ষণ পর্যন্ত হৃৎপিণ্ড কাজ করে, ততক্ষণ পর্যন্ত আত্মা সেখানে উপস্থিত থাকে। যদি মেডিকেল যন্ত্রপাতির কারণে হৃৎপিণ্ড চলে, তাও আত্মা উপস্থিত থাকে।
শালম আর তাকিশা দুই পরিবারেরই আইনজীবী ছিলেন হাগ স্কের। তিনি আদালতের কাছে তুলে ধরেছিলেন, কানাডার আইন অনুসারে, মৃত্যুর সংজ্ঞা দেশটির ধর্ম স্বাধীনতাকে লঙ্ঘন করছে। তার বিপরীতে যুক্তি দেখানো হয়েছিল যে শুধু জীবিত ব্যক্তিদের সেই অধিকার রয়েছে। তবে হাগ স্কেরের যুক্তির পক্ষে কিছু সমর্থনও পাওয়া গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গরাজ্য নিউ জার্সিতে ধর্মবিশ্বাসের বিরুদ্ধে গেলে চিকিৎসকের কোনো ব্যক্তিকে মৃত ঘোষণা করার ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ২০০৮ সালে ইসরায়েল মস্তিষ্কের মৃত্যুকে মানদণ্ড ধরলেও সেখানে রোগীর ইচ্ছা-অনিচ্ছার বিষয়টিকেও গুরুত্ব দেওয়া হয়। মস্তিষ্কের মৃত্যু অথবা হৃৎপিণ্ড-শ্বাসতন্ত্রের প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যু—এ দুটির মধ্যে যেকোনো একটিকে বেছে নেওয়ার সুযোগ রয়েছে সেখানে।
১৩ বছরের মার্কিন কিশোরী জাহি ম্যাকম্যাথকে ‘মৃত ঘোষণার’ ঘটনাটি আলোচিত ছিল যুক্তরাষ্ট্রে। টনসিল অস্ত্রোপচারের জন্য হাসপাতালে ভর্তি হওয়া জাহিকে ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর মৃত ঘোষণা করেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের চিকিৎসকেরা। তবে চিকিৎসকের এ সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে আদালতে যান জাহির মা। তাঁর পক্ষে আইনজীবী একাধিক ভিডিও উপস্থাপন করেন, যাতে দেখানো হয় জাহির আঙুল নড়ছে। যদিও হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানান, মস্তিষ্কের মৃত্যুর পরও এ ধরনের নড়াচড়া দেখা যায়। এমনকি গায়ে উষ্ণতাও থাকে। তারা ‘মৃত মানুষকে’ লাইফ সাপোর্টে রাখতেও অস্বীকৃতি জানায়। তবে আইনি লড়াই দিয়ে এখনো জাহিকে লাইফ সাপোর্টে রাখতে বাধ্য করেছেন তাঁর মা। আদালতের নির্দেশে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে জাহিকে নিয়ে তাঁর মা নিউ জার্সিতে চলে যান। কারণ, একমাত্র নিউ জার্সিতেই ধর্মীয় বিশ্বাসের বাইরে কাউকে মস্তিষ্কের মৃত্যুর জন্য মৃত ঘোষণা করার নিয়ম নেই। সেখানের একটি অ্যাপার্টমেন্টে এখনো লাইফ সাপোর্টে রয়েছে জাহি।
কেন মৃত ঘোষণা করা হয়?
নাড়ির স্পন্দন বা হৃৎস্পন্দন ও শ্বাসপ্রশ্বাস-প্রক্রিয়া বন্ধ হওয়া মানেই মৃত্যু—প্রচলিত এই ধারণায় ১৯৫০ ও ১৯৬০ দশকে পরিবর্তন আসে। আধুনিক চিকিৎসাব্যবস্থার কারণে প্রচলিত ওই ভাবনায় পরিবর্তন আসে। প্রথমবারের মতো যন্ত্রের মাধ্যমে একজন মানুষের ধমনি ও শিরায় রক্তপ্রবাহ সচল রাখা সম্ভব হয়। অকেজো ফুসফুসকেও সচল রাখা হয়। একই সময়ে প্রতিটি অঙ্গের কার্যকারিতা থেমে যাওয়ার আগ পর্যন্ত এভাবে মৃত্যুর প্রক্রিয়াকে দীর্ঘায়িত করা গিয়েছিল।

১৯৬৮ সালে হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের এক কমিটি মস্তিষ্কের মৃত্যুকে মৃত্যুর সঠিক সংজ্ঞা হিসেবে উল্লেখ করে এবং এটা পরিমাপে কিছু মানদণ্ড নির্ধারণ করে।
১৯৬৮ সালে যুক্তরাষ্ট্র দেশটির মৃত্যু নির্ণয়সংক্রান্ত আইনে কমিটির সুপারিশ সংযুক্ত করে। এতে মস্তিষ্কের মৃত্যুকে মৃত্যুর সংজ্ঞা হিসেবে নেওয়া হয়। এর পাশাপাশি হয় হৃৎস্পন্দন ও শ্বাসপ্রশ্বাস-প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়া অথবা পুরো মস্তিষ্কের স্থায়ী ক্ষতি হওয়াকে মৃত্যুর সংজ্ঞা হিসেবে এতে উল্লেখ করা হয়। পশ্চিম বিশ্বের বেশির ভাগ দেশ এটাই অনুসরণ করে।

alokmoybangladesh002.png
Ronald Reagan was undergoing treatment at the UCLA Medical Center, eight year old Col Hartman. Four years later, Los Angeles Police in the United States has started investigating his death. Photo: Because of Reutersin policymakers and doctors have so much attention on the brain. One of these is that the mind and body are seen as distinct in Western philosophy. In other cultures, heart is considered to be the central organ of the human body. Western science emphasizes on the mind, where the brain is seen as a change of mind. According to bioethicists, brain death is the exact definition of human death.

The second reason is, spending on keeping someone in life support is cost. Due to limited healthcare, the countries do not want to spend so much in this sector. After the court ordered Shalom to be kept on life support, he had to spend four lakh US dollars (about 3 crore 39 lakhs) in the hospital.
The third reason is, replacement of organs. In Britain, 1,332 people died in 2016 due to lack of compulsion. The number in the United States is more than seven thousand. Many organs are collected from dead people.
Some countries are lacking in organ transplantation. They fear that for the replacement of liver, kidney and heart, there will be more encouragement to the dead announcement. It will be declared dead due to rumors that the brain has died. Because of this, Japan relies on heart and respiratory system for its declaration. In 1968, a person's heart was replaced for the first time in Sapporo, Japan. However, the surgery on the heart of the heart now raises many questions. That surgery was applauded at that time. However, the question arose that the heart had been declared dead before the heart had died in order to receive the heart.
The recent incidence of limb after the death of a US baby named Cole Hartman comes in the discussion. The eight-year-old child was disabled In 2013, the coil inserted the head while washing machine was in the house. When his father Jeremy Hartman rescued him from the water, he was taken to the hospital and he was given artificial respiration. Later, the doctor told the family of the family of the family of the family of the family, even if the brain does not die, his brain will no longer work, he will never wake up. According to the family's decision, life support is taken from her body. After 23 minutes, Cole was declared dead. His family donated different organs of his body. During the announcement of the death of Koll, there were body organs of surgery. Four years after the incident, Los Angeles police investigated the death of the police in 2010. The police said that Kol was declared dead as rush to organize. To accelerate his death, he used to apply excessive phenant (pain reduction and drug use).
Japan adopted a law in 1997 that those who agreed to organ donation can be taken after their brain's death. According to India's Organ Replacement Act 1994, brain stem death will be considered as death. However, the definition of the death of those who do not want to donate organs is not there.
In many developing countries, the process of heartbreak and respiratory failure is taken as a definition of death. The conventional concept in Africa, anyway, must be long lived. Many Africans feel that if they do not run out of life they will be worshiped in the spiritual world.
Kenya's Daphne Nugunjiri said that the matter is not religious only. In many countries, there is no need for a brain dead person to start breathing equipment with medical equipment. So they hold the heart and respiratory process in the process of death as death.

বাংলা

রোনাল্ড রিগ্যান ইউসিএলএ মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসাধীন ছিল আট বছর বয়সী কোল হার্টম্যান। চার বছর পর তার মৃত্যু নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলস পুলিশ। ছবি: রয়টার্সতিনটি কারণে নীতিনির্ধারক ও চিকিৎসকেরা মস্তিষ্কের ওপর এত মনোনিবেশ করেছেন। এর একটি হলো পশ্চিমা দর্শনে মন ও দেহকে স্বতন্ত্র হিসেবে দেখা হয়। যেখানে অন্য সংস্কৃতিতে হৃৎপিণ্ডকে মানবদেহের কেন্দ্রীয় অঙ্গ বলে ধরা হয়। পশ্চিমা বিজ্ঞান মনের ওপর বেশি জোর দেয়, যেখানে মস্তিষ্ককে মনের পরিবর্তিত অবস্থা রূপে দেখা হয়। বায়োএথিসিস্টদের মতে, মস্তিষ্কের মৃত্যুই মানুষের মৃত্যুর সঠিক সংজ্ঞা।

দ্বিতীয় কারণ হচ্ছে, লাইফ সাপোর্টে কাউকে রাখার ক্ষেত্রে ব্যয়। সংকুচিত স্বাস্থ্যসেবার কারণে এ খাতে দেশগুলো এত ব্যয় করতে চায় না। আদালত শালমকে লাইফ সাপোর্টে রাখার নির্দেশ দেওয়ার পর তাঁর জন্য হাসপাতালে চার লাখ মার্কিন ডলার (প্রায় ৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা) ব্যয় করতে হয়েছে।
তৃতীয় কারণ হচ্ছে, অঙ্গ প্রতিস্থাপন। ব্রিটেনে ২০১৬ সালে ১ হাজার ৩৩২ জন মানুষ মারা গেছে অঙ্গদাতার অভাবে। যুক্তরাষ্ট্রে এ সংখ্যা সাত হাজারের বেশি। অনেক অঙ্গ মৃত ব্যক্তিদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়।
কিছু দেশ অঙ্গ প্রতিস্থাপনে উদাসীন। তারা আশঙ্কা করে, প্রতিস্থাপনের জন্য যকৃৎ, কিডনি ও হৃৎপিণ্ড পাওয়ার জন্য মৃত ঘোষণায় উৎসাহ থাকবে বেশি। তাড়াহুড়ো করে মস্তিষ্কের মৃত্যু হয়েছে জানিয়ে মৃত ঘোষণা করা হবে। আর এ কারণে জাপান মৃত ঘোষণার ক্ষেত্রে হৃৎপিণ্ড ও শ্বাসতন্ত্রের ওপর নির্ভর করে। জাপানের সাপ্পোরোতে ১৯৬৮ সালে প্রথমবারের মতো কোনো ব্যক্তির হৃৎপিণ্ড প্রতিস্থাপন করা হয়। তবে হৃৎপিণ্ডদাতাকে নিয়ে ওই অস্ত্রোপচার এখন নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। ওই অস্ত্রোপচারকে ওই সময় সাধুবাদ জানানো হয়েছিল। তবে হৃৎপিণ্ড পাওয়ার জন্য হৃৎপিণ্ডদাতাকে আগেভাগেই মস্তিষ্কের মৃত্যু হয়েছে জানিয়ে মৃত ঘোষণা করা হয়েছিল বলে প্রশ্ন ওঠে পরবর্তী সময়ে।
সাম্প্রতিক সময়ে আলোচনায় আসে কোল হার্টম্যান নামের এক মার্কিন শিশুর মৃত্যুর পর অঙ্গদানের ঘটনা। আট বছর বয়সী শিশুটি ছিল প্রতিবন্ধী। ২০১৩ সালে বাড়িতে ওয়াশিং মেশিন চালু থাকা অবস্থায় মাথা ঢুকিয়ে দেয় কোল। পানিতে মাথা ডুবে থাকা অবস্থায় তাঁর বাবা জেরেমি হার্টম্যান তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে কৃত্রিমভাবে শ্বাসপ্রশ্বাস নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। পরে চিকিৎসক কোলের পরিবারকে জানায়, শিশুটির মস্তিষ্কের মৃত্যু না হলেও তার মস্তিষ্ক আর কাজ করবে না, সে কখনো জেগে উঠবে না। পরিবারের সিদ্ধান্ত অনুসারে, তার শরীর থেকে লাইফ সাপোর্ট খুলে নেওয়া হয়। এর ২৩ মিনিট পর কোলকে মৃত ঘোষণা করা হয়। কোলের শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ দান করে দিয়েছিল তার পরিবার। কোলকে মৃত ঘোষণার সময় সেখানে অপেক্ষায় ছিল অঙ্গ প্রতিস্থাপনের অস্ত্রোপচারের দল। এ ঘটনার চার বছর পর ২০১৭ সালে লস অ্যাঞ্জেলেস পুলিশ কোলের মৃত্যু নিয়ে তদন্ত শুরু করে। পুলিশের ধারণা, অঙ্গ নেওয়ার জন্য তাড়াহুড়ো করে মৃত ঘোষণা করা হয়েছিল কোলকে। তার মৃত্যু ত্বরান্বিত করার জন্য মাত্রাতিরিক্ত ফেন্টানিল (ব্যথা কমানো ও অচেতন করার জন্য ব্যবহৃত ওষুধ) প্রয়োগ করেছিলেন চিকিৎসক।
জাপান ১৯৯৭ সালে এক আইন কার্যকর করে যে যাঁরা অঙ্গ দানের সম্মতি দিয়ে গেছেন, তাঁদের মস্তিষ্কের মৃত্যুর পর তা নেওয়া যাবে। ভারতের অঙ্গ প্রতিস্থাপন আইন ১৯৯৪ অনুসারে, ব্রেইন স্টেমের মৃত্যুকে মৃত্যু হিসেবে ধরা হবে। তবে অঙ্গ দান করতে চান না—এমন ব্যক্তিদের মৃত্যুর সংজ্ঞা সেখানে স্পষ্ট করা নেই।
অনেক উন্নয়নশীল দেশে হৃৎপিণ্ড-শ্বাসতন্ত্রের প্রক্রিয়া থেমে যাওয়াকে মৃত্যুর সংজ্ঞা হিসেবে গ্রহণ করা হয়। আফ্রিকায় প্রচলিত ধারণা, যেকোনোভাবেই হোক দীর্ঘজীবী হতে হবে। অনেক আফ্রিকান মনে করেন, জীবন তাড়াতাড়ি ফুরিয়ে না গেলে তাঁরা আধ্যাত্মিক জগতে পূজনীয় হতে পারবেন।
কেনিয়ার চিকিৎসক ডাফনে নুগুনজিরি বলেন, বিষয়টি শুধু ধর্মীয় নয়। অনেক দেশে একজন মস্তিষ্ক মৃত মানুষকে মেডিকেল যন্ত্রপাতি দিয়ে শ্বাসপ্রশ্বাস চালু রাখার মতো যন্ত্রপাতি তাদের নেই। তাই তারা হৃৎপিণ্ড-শ্বাসতন্ত্রের প্রক্রিয়া থেমে যাওয়াকে মৃত্যু হিসেবে ধরে নেয়।

rashed khan.png

Sort:  

This post has received a 0.13 % upvote from @drotto thanks to: @rasidulislam0433.

You just received a 9.09% lifting from @botox ! You can also earn by making delegation to @botox.
Tu viens de recevoir un lifting de 9.09% de la part de @botox ! Tu peux également être récompensé en faisant de la délegation à @botox.

Informative yet Holistic 😎

Great post, i love it, death for me is just and illusion just like times as well

you made me remember a movie that talks about life after death from a very interesting perspective

ok, so good. thank you @merryslamb

Coin Marketplace

STEEM 0.26
TRX 0.14
JST 0.033
BTC 51577.18
ETH 3106.76
USDT 1.00
SBD 4.16